ব্রেকিং:
হাটবাজার, দোকানপাট ও শপিংমল খোলা রাখার সময় বাড়ানো হয়েছে। সময় এক ঘণ্টা বাড়িয়ে রাত আটটা পর্যন্ত করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। যা এতদিন সন্ধ্যা ৭টা পর্যন্ত ছিল। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ও সব ধরনের কোচিং সেন্টার বন্ধ রাখার নির্দেশ করোনার উপসর্গ নিয়ে কুড়িগ্রামে পুলিশ সদস্যের মৃত্যু পানিবন্দি ৩০ লাখ মানুষকে খাদ্য সহায়তা অব্যাহত:ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী ৪৮ ঘণ্টা আগেই রংপুর সিটিতে পশুর বর্জ্য অপসারণ গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে করোনাভাইরাসে আরো ৩০ জনের মৃত্যু হয়েছে এবং নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন এক হাজার ৩৫৬ জন।
  • মঙ্গলবার   ০৪ আগস্ট ২০২০ ||

  • শ্রাবণ ১৯ ১৪২৭

  • || ১৪ জ্বিলহজ্জ ১৪৪১

সর্বশেষ:
বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর জনগণ সব সম্ভাবনা হারিয়ে ফেলে- প্রধানমন্ত্রী ঠাকুরগাঁওয়ে রত্নাই সীমান্তের নাগর নদীতে বাংলাদেশির লাশ ভিয়েনায় `বঙ্গবন্ধু স্মৃতি ক্রিকেট টুর্নামেন্ট` উদ্বোধন দেশবাসী নিরাপদে ঈদ উদযাপন করেছে- স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বাংলাদেশে ধর্ম যার যার উৎসব কিন্তু সবার- তথ্যমন্ত্রী
২৯৭

কুড়িগ্রামের দুই উপজেলায় বন্যা পরিস্থিতির অবনতি

– দৈনিক ঠাকুরগাঁও নিউজ ডেস্ক –

প্রকাশিত: ১৬ জুলাই ২০২০  

ব্রহ্মপুত্র নদ বেষ্টিত কুড়িগ্রামের রৌমারী ও রাজীবপুর উপজেলায় বন্যার পরিস্থিতির অবনতি হয়েছে। ব্রহ্মপুত্র নদের পানি অস্বাভাবিকভাবে বেড়ে যাওয়ায় তলিয়ে গেছে রৌমারী উপজেলার বিভিন্ন হাট-বাজার, রাস্তা-ঘাট ও কয়েকশ বাড়িঘর।

রাজীবপুর উপজেলার রৌমারী টু ঢাকাগামী ডিসি রাস্তা ছাড়া ৩টি ইউপির সমস্ত এলাকা বন্যার পানিতে তলিয়ে গেছে। রাজীবপুর উপজেলা প্রশাসনিক ভবন ও চত্ত্বরে হাঁটুপানি। শিশু পার্ক, বিভিন্ন স্কুল-কলেজ, রাস্তা-ঘাট, হাট বাজার বন্যার পানিতে তলিয়ে গেছে। হতাশায় পড়েছেন কৃষকসহ খেটে খাওয়া মানুষ। তারা গরু, মহিষ, ছাগল, ভেড়া, হাঁস-মুরগীসহ ঘরের মূল্যবান জিনিসপত্র নিয়ে বিপাকে পড়েছেন। 

অস্যংখ্য মানুষ বন্যা থেকে বাঁচতে আশ্রয় নেয় উঁচু বাঁধসহ রাস্তায়। রাজীবপুর উপজেলার কোদালকাটি ইউপি ও মোহনগঞ্জ ইউপির মানুষ খুব কষ্টে জীবনযাপন করছেন। এখন পর্যন্ত রাজীবপুর উপজেলায় প্রায় ৯০ ভাগ মানুষ পানিবন্দী। বন্যার পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় দুই উপজেলার ব্রহ্মপুত্র নদের তীরবর্তী গ্রামগুলোতে নদী ভাঙন দেখা দিয়েছে। রাজীবপুর টু জামালপুর মহাসড়ক চরম হুমকির মধ্যে রয়েছে। স্রোত বেড়ে গেলে যে কোনো সময়ের মধ্যে ব্যস্ততম সড়কটি ভেঙ্গে গিয়ে রাজধানী ঢাকার সঙ্গে যোগাযোগ বন্ধ হয়ে যেতে পারে।  

রাজীবপুর সদর ইউপি চেয়ারম্যান কামরুজ্জামান বাদল বলেন, আমার ইউপিতে বেশ কয়েক হাজার মানুষ পানিবন্দী হয়ে পড়েছে। এরইমধ্যে দূর্গতদের ৩০০ শুকনো খাবার দিয়েছি। বরাদ্দ এলে আরো দেয়ার চেষ্টা করবো।

রাজীবপুর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আকবর হোসেন (হিরো) বলেন, উপজেলা পরিষদের পক্ষ থেকে বানভাসি পরিবারকে সহযোগিতা করেছি। এরইমধ্যে রাজীবপুর উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে ১৬ মেট্রিক টন চাল, ৪০০ প্যাকেট শুকনো খাবার ও রাজীবপুর সদর ইউপির পক্ষ থেকে ৩০০ শুকনো খাবার বানভাসিদের দেয়া হয়েছে।   

রাজীবপুর ইউএনও নবিরুল ইসলাম জানান, বন্যা পরিস্থিতি মোকাবিলায় সব ধরণের প্রস্তুতি গ্রহণ করা হয়েছে। পানিবন্দীদের নিরাপদ স্থানে নেয়া হচ্ছে। যাদের বাড়ি ঘর তলিয়ে গেছে তাদেকে আশ্রয় কেন্দ্রে যাওয়ার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ কার্যক্রম অব্যাহত রয়েছে।

– দৈনিক ঠাকুরগাঁও নিউজ ডেস্ক –
নগর জুড়ে বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর