ব্রেকিং:
দিনাজপুরে গত ২৪ ঘণ্টায় ৮ জন ব্যক্তি করোনা ভাইরাসে (কোভিড-১৯) আক্রান্ত হয়েছেন। এ নিয়ে জেলায় মোট আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়ালো ৪ হাজার ৬১৯ জনে। শনিবার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন দিনাজপুরের সিভিল সার্জন ডাঃ মোঃ আব্দুল কুদ্দুছ।
  • রোববার   ১৭ জানুয়ারি ২০২১ ||

  • মাঘ ৩ ১৪২৭

  • || ০৩ জমাদিউস সানি ১৪৪২

সর্বশেষ:
এ মাসে ৬৬ হাজার পরিবার পাবে প্রধানমন্ত্রীর উপহার চিরিরবন্দরে রসুনের বাম্পার ফলনের সম্ভাবনা ঢাকা এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে এখন দৃশ্যমান নতুন ৬ মেডিকেল কলেজের মাস্টারপ্ল্যান শীতে জবুথবু পঞ্চগড়, চলছে মৃদু শৈত্যপ্রবাহ

কুড়িগ্রামে মাঝারি শৈত্যপ্রবাহ চলছেই, দুর্ভোগে শ্রমজীবীরা

– দৈনিক ঠাকুরগাঁও নিউজ ডেস্ক –

প্রকাশিত: ২০ ডিসেম্বর ২০২০  

কুড়িগ্রামে মাঝারি ধরনের শৈত্যপ্রবাহ অব্যাহত রয়েছে। আজ রবিবার (২০ ডিসেম্বর) ভোর ৬টায় এ জেলায় সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে ৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

কুড়িগ্রামের রাজারহাট কৃষি আবহাওয়া পর্যবেক্ষণাগারের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সুবল চন্দ্র সরকার জানিয়েছেন, এই অবস্থা আরো ২-৩ দিন অব্যাহত থাকতে পারে।

এদিকে, মাঝারি শৈত্যপ্রবাহের সঙ্গে হিমেল হাওয়া জেলায় শীতের তীব্রতা বাড়িয়ে দিয়েছে। এতে দুর্ভোগে পড়েছে শহরের বস্তি, চরাঞ্চল ও নদ-নদীতীরবর্তী এলাকার হতদরিদ্র মানুষ। অনেকেই খড়কুটো জ্বালিয়ে আগুনের উত্তাপ নেওয়ার চেষ্টা করছে। শিশু ও বয়স্কদের অবস্থা কাহিল হয়ে পড়েছে আরো বেশি। বাড়ছে রোগব্যাধিও। শ্রমজীবীদের অনেকেই যেতে পারছে না কাজে। অতি কষ্টে কাজে বের হলেও রোজগার কমে গেছে।

কুড়িগ্রামের ছয়ানি বস্তির বাসিন্দা রীতা রানী ও টুলো রানী জানান, দুই দিন ধরে শীতের তীব্রতা বৃদ্ধি পাওয়ায় শিশুদের নিয়ে অত্যন্ত কষ্টে দিন পার করছেন তাঁরা। ইতোমধ্যে বস্তির ঘরে ঘরে দেখা দিয়েছে শীতজনিত রোগব্যাধির প্রকোপ।

কুড়িগ্রাম স্টেশন এলাকায় রেল লাইনের পাশে আশ্রিত মোজাম্মেল হক, নূর বক্ত আলী ও গোলেনুর বেগম জানান, উচ্ছেদের পর তাঁরা প্রচণ্ড ঠাণ্ডায় পলিথিন টাঙিয়ে আশ্রয় নিয়ে আছেন। কনকনে ঠাণ্ডা আর হিমেল হাওয়ায় কাবু হয়ে পড়েছেন, অথচ এখন পর্যন্ত কোনো শীতবস্ত পাননি তাঁরা।

কুড়িগ্রাম জেলা ত্রাণ ও পুণর্বাসন কর্মকর্তা আব্দুল হাই সরকার বলেন, 'জেলায় ৩৫ হাজার কম্বল ইতোমধ্যে বিতরণ করা হয়েছে। প্রতি উপজেলায় বরাদ্দ ৬ লাখ টাকা দিয়ে শীতবস্ত্র কিনে তা বিতরণের প্রক্রিয়া চলছে।'  

– দৈনিক ঠাকুরগাঁও নিউজ ডেস্ক –