ব্রেকিং:
চট্টগ্রামের হাটহাজারী মাদ্রাসা প্রাঙ্গণে আল্লামা শাহ আহমদ শফীর জানাজার নামাজ সম্পন্ন।
  • শনিবার   ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২০ ||

  • আশ্বিন ৪ ১৪২৭

  • || ০১ সফর ১৪৪২

সর্বশেষ:
আল্লামা শফীর মৃত্যুতে রাষ্ট্রপতি-প্রধানমন্ত্রীর শোক সরকারের ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় বদলে যাচ্ছে উত্তর দিগন্ত কেন্দ্রীয় কারাগারে নিরাপত্তা বাড়াতে স্ট্রাইকিং ফোর্স গঠন হিলি স্থলবন্দর দিয়ে ১৫০ ট্রাক পেঁয়াজ আসছে আজ নেতৃত্ব নিয়ে এখন টালমাটাল অবস্থায় বিএনপি
১১

জেনে নিন রান্নাঘরের স্বাস্থ্যবিধি     

– দৈনিক ঠাকুরগাঁও নিউজ ডেস্ক –

প্রকাশিত: ৬ সেপ্টেম্বর ২০২০  

খাদ্য সুরক্ষা চূড়ান্তভাবে নিশ্চিত করে রান্নাঘর। আর তাই রান্নাঘরের স্বাস্থ্যবিধি সর্বোত্তম অনুসরণ করা আবশ্যক।

করোনাভাইরাসের প্রকোপের এই বছরে সর্বাধিক গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হলো স্বাস্থ্য সুরক্ষা নিশ্চিত করা। নিজের চারপাশ পরিষ্কার রাখা, হাত ধোঁয়া, নিরাপদ দূরত্ব বজায় রাখা এবং মাস্ক পরার মতো সাধারণ অভ্যাসগুলো কঠোরভাবে পালন করছে সবাই।
তবে স্বাস্থ্য সুরক্ষার কথা বললেই প্রথমেই মাথায় আসে খাদ্য সুরক্ষার বিষয়টি। মানুষ যা খাচ্ছে, তার জন্য সর্বোত্তম স্যানিটেশন অনুসরণ করার চেষ্টা করছে কিনা! আর এই খাদ্য সুরক্ষা নিশ্চিত হচ্ছে কিনা তা অনেকাংশই নির্ভর করে রান্নাঘরের পরিবেশের উপর। রান্নাঘর হলো যেখানে খাবার প্রস্তুত, প্রক্রিয়াজাতকরণ এবং প্যাকেটজাত করা হয়।

অনেকেই জানেন না, রান্নাঘরের সর্বোত্তম স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ নিশ্চিত করার জন্য কী করা উচিত? আপনার রান্নাঘরটি স্যানিটাইজড, পরিষ্কার এবং জীবাণুমুক্ত রাখার জন্য নিচে ৫টি গুরুত্বপূর্ণ পরামর্শ তুলে ধরে হলো:

১. গ্যাসের চুলা:

গ্যাসের চুলা এমন একটি জায়গা যেখানে সময়ের সাথে সাথে সংক্রমণের প্রজনন ক্ষেত্র হয়ে উঠতে পারে। এজন্য বিশেষজ্ঞরা রান্নার পরে পানির সাথে সাবান বা ডিটারজেন্টের মিশ্রণ দিয়ে চুলা পরিষ্কার করার পরামর্শ দেন। এই সাধারণ অনুশীলনটি রান্নাঘরের এবং রান্না করা খাবারের পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা ও স্বাস্থ্যমান নিশ্চিত করবে।
২. রান্নাঘর কাউন্টার এবং স্ল্যাব:

রান্নাঘর কাউন্টার এবং স্ল্যাব হলো যেখানে শাকসবজি, ফল এবং অন্যান্য উপাদানগুলি ধোয়ার আগে রাখা হয়। রান্না করার পূর্বে জীবাণু সৃষ্টি ও দূষণ রোধ করার জন্য রান্নাঘরের স্ল্যাবগুলো পরিষ্কার-পরিছন্ন করে নেওয়া উচিত।

চপিং বোর্ড রান্নার জন্য অত্যন্ত আবশ্যকীয় পণ্য। তাই এটি নিয়মিত পরিষ্কার করতে হবে। ভালোভাবে পরিষ্কারের জন্য লবণ এবং লেবুর জলের মিশ্রণ ব্যবহার করতে পারেন।

৩. শাকসবজি ও ফল:

যখন খাদ্য সুরক্ষার কথা আসে, তখন কেবল খাবারের আশেপাশের জায়গাগুলোই নয়, খাবারগুলোও সর্বোচ্চ মানের কিনা তা নিশ্চিত হওয়া উচিত। খাবার দূষিত হওয়ার ঝুঁকি মোকাবেলায় শাকসবজি খাওয়ার আগে আপনাকে সঠিকভাবে পরিষ্কার করে প্রয়োজনীয় সতর্কতা অবলম্বন করার পরামর্শ দেওয়া হয়। ঘরোয়া প্রতিকারগুলো এ ক্ষেত্রে কার্যকর নাও হতে পারে।

এজন্য বিশেষজ্ঞরা মানসম্মত ক্লিনার ব্যবহারের পরামর্শ দেন। ১০০% প্রাকৃতিকভাবে প্রাপ্ত ফল এবং শাকসবজি ক্লিনজার ক্লোরিন, অ্যালকোহল এবং রাসায়নিক ব্যবহার ছাড়াই ৯৯.৯% জীবাণু, কীটনাশক এবং মোমতুল্য পদার্থ অপসারণ করতে সহায়তা করে।
ভারতের পুষ্টিবিদ নিম্মি আগরওয়াল বলেছেন, ‘বর্তমান পরিস্থিতিতে আমরা স্বাস্থ্যকর খাদ্যাভ্যাস, সুপারফুডের ব্যবহার এবং ডায়েটে শাকসবজি যুক্ত করি। তবে আমাদের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ- খাওয়ার আগে তা ভালোভাবে পরিষ্কার করে নেওয়া। অথচ সেটাই খুবই হালকাভাবে গ্রহণ করি।

৪. পাত্র এবং সংরক্ষণের স্থান:

খাদ্য সুরক্ষার একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হলো পাত্র এবং যে পাত্রে খাদ্য সংরক্ষণ করা হয়। মসুর ডাল এবং আটা প্রায়শই পোকামাকড় দ্বারা সংক্রামিত হয়। যা রোগ এবং সংক্রমণের কারণ হতে পারে। তাই প্রতিবার ব্যবহারের পরে পাত্র সাবান বা ডিটারজেন্টের সাহায্যে ধুয়ে নেওয়া প্রয়োজন।

এছাড়াও খাবারে পচন হ্রাস করার জন্য পাত্রগুলোতে উপাদান রাখার আগে এগুলো অবশ্যই সম্পূর্ণ শুকনো রাখতে হবে।
৫. সরঞ্জাম:

ব্লেন্ডার, মিক্সার, রেফ্রিজারেটর, মাইক্রোওয়েভ, ওভেন, গ্রিলস, টোস্টার এবং আরও যা কিছু রান্নাঘরের সরঞ্জাম ব্যবহার করা হয়, এগুলো হাতের সাহায্যে ভালোভাবে পরিষ্কার করে ‍নিতে হবে। মাইক্রোওয়েভ প্রায়শই অগোছালো এবং নোংরা হতে পারে, তাই এটি নিয়মিত পরিষ্কার করা উচিত। বিশেষজ্ঞরা ভিনেগার এবং পানিভিত্তিক ক্লিনার ব্যবহার করার পরামর্শ দেন। ভালোমতো পরিষ্কারের জন্য মাইক্রোওয়েভের বাটিটি গরম করুন এবং দ্রুত দাগ দূর করতে স্পঞ্জ ব্যবহার করুন।

মূলকথা রান্নাঘর সব সময় পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন রাখুন। রান্নাঘরের সরঞ্জাম এবং কাঁচামাল সর্বোচ্চ স্যানিটেশন করে রাখলে, আপনি সর্বদা জীবাণুমুক্ত, স্বাস্থ্যকর রান্নাঘর নিশ্চিত করতে পারবেন।

তথ্যসূত্র: এনডিটিভি

– দৈনিক ঠাকুরগাঁও নিউজ ডেস্ক –
লাইফস্টাইল বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর