ব্রেকিং:
দিনাজপুরে গত ২৪ ঘণ্টায় ৫ জন ব্যক্তি করোনা ভাইরাসে (কোভিড-১৯) আক্রান্ত হয়েছেন। এ নিয়ে জেলায় মোট আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়ালো ৪ হাজার ৬৫৯ জনে। সোমবার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন দিনাজপুরের সিভিল সার্জন ডাঃ মোঃ আব্দুল কুদ্দুছ। রংপুরের লালবাগের একটি ছাত্রীনিবাসে এক শিক্ষার্থীর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার।
  • মঙ্গলবার   ২৬ জানুয়ারি ২০২১ ||

  • মাঘ ১২ ১৪২৭

  • || ১২ জমাদিউস সানি ১৪৪২

সর্বশেষ:
অনুমোদন পেল দেশে উদ্ভাবিত প্রথম পিসিআর টেস্ট কিট দারিদ্র্যের হার বেড়ে ৪২ শতাংশ হওয়ার তথ্য সঠিক নয় বিরামপুর সীমান্তে আটক মহিষ নিলামে বিক্রি পেট্রলপাম্পে পরিমাপে কম, ছদ্মবেশে ধরলেন ম্যাজিস্ট্রেট বাংলাদেশের মানুষের জন্য এটি সবচেয়ে বড় উৎসব- প্রধানমন্ত্রী

নেতাদের খবরদারিতে ঝুলে গেছে খালেদার লন্ডন যাত্রা 

– দৈনিক ঠাকুরগাঁও নিউজ ডেস্ক –

প্রকাশিত: ২৭ নভেম্বর ২০২০  

বিএনপির কিছু নেতাদের খবরদারিতে বেকায়দায় রয়েছেন দুর্নীতির দায়ে দণ্ডিত ও সাময়িক মুক্তিতে থাকা দলটির চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়া। সম্প্রতি সব প্রস্তুতি সম্পন্ন হলেও নেতাদের খবরদারিতে অনিশ্চিত হয়ে গেছে খালেদা জিয়ার লন্ডন যাত্রা। আর এ পরিস্থিতির জন্য নেতাদের ওপর নাখোশ বিএনপির চেয়ারপার্সনের স্বজনরা।

সূত্র জানায়, প্রথম দফায় দেয়া খালেদা জিয়ার ছয় মাস মুক্তির মেয়াদ শেষ হওয়ার আগেই মুক্তির মেয়াদ বাড়াতে আবেদন করেন স্বজনরা। মুক্তির মেয়াদ ছয় মাস শেষ হওয়ার পরও সরকার আরো ছয় মাস সময় বাড়িয়ে দেয়। এ সময় স্বজনরা খালেদা জিয়াকে লন্ডন নিয়ে চিকিৎসার প্রস্তুতি শুরু করেন। কিন্তু সরকারের সঙ্গে সমঝোতা করে খালেদা জিয়ার বিদেশে যাওয়ার বিষয়টিকে ভালোভাবে নিতে পারেননি দলটির কিছু নেতা। তাই অনুসারীদের খবরদারিতে পড়ে দলের চেয়ারপার্সনের লন্ডন যাত্রা অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে। নেতারা বিভিন্নভাবে খালেদার লন্ডন যাত্রার ব্যাপারে অনীহা প্রকাশ করেছেন।

বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়ার মুক্তির মেয়াদের চার মাস বাকি আছে। এরই মধ্যে বিশ্বের সব দেশে করোনাভাইরাসের দ্বিতীয় ঢেউ শুরু হয়েছে। প্রতিদিনই বাড়ছে আক্রান্ত ও মৃত্যুর সংখ্যা। এমতাবস্থায় নেতাদের খবরদারি ও করোনার কারণে সিদ্ধান্তহীনতায় ভুগছেন বিএনপির চেয়ারপার্সন।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বিএনপির কেন্দ্রীয় এক নেতা জানান, খালেদা জিয়া প্রথম যখন ছয় মাসের জন্য সাময়িক মুক্তি পান তখন দেশে করোনা পরিস্থিতি ভয়াবহ ছিল। এ কারণে তিনি বিদেশে চিকিৎসার জন্য যাওয়ার চেষ্টা করেননি। তবে তার মুক্তির মেয়াদ আরো ছয় মাস বাড়ার পর তিনি চিকিৎসার জন্য লন্ডনে যাওয়ার আগ্রহ প্রকাশ করেন। এজন্য যাবতীয় প্রস্তুতি নিতেই দলের কিছু নেতা-কর্মী খালেদা জিয়াকে বিষেদগার করেন। আবার করোনার দ্বিতীয় দফা সংক্রমণ শুরু হওয়ায় এখন বিদেশে চিকিৎসার জন্য যেতে আগ্রহ হারিয়ে ফেলেছেন খালেদা জিয়া। এ পরিস্থিতিতে তিনি চিকিৎসার জন্য যাবেন কি-না, আর গেলেও কখন যাবেন তা বলা যাচ্ছে না।

খালেদা জিয়ার স্বজনরা জানান, তার বিদেশে চিকিৎসার বিষয়ে সব প্রস্তুতি প্রায় সম্পন্ন ছিল। কিন্তু বিএনপির কিছু নেতা এ বিষয়ে নেতিবাচক মনোভাব পোষণ করেছেন। এই নেতিবাচক মনোভাবকে খালেদা জিয়ার স্বজনরা ভালোভাবে নিচ্ছেন না। এছাড়া প্রস্তুতি চূড়ান্ত করার আগেই দেশ-বিদেশে করোনার সংক্রমণ বেড়ে গেছে। এ পরিস্থিতিতে বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়ার চিকিৎসার জন্য লন্ডন যাত্রা অনিশ্চিতই বলা চলে। তবে পরিস্থিতি অনুকূলে এলে হয়তো পরবর্তীতে সুবিধাজনক সময়ে খালেদা জিয়া চিকিৎসার জন্য বিদেশে যেতে পারেন।

সূত্র জানায়, লন্ডনে চিকিৎসার লক্ষ্যে খালেদা জিয়াকে নেয়ার বিষয়ে বিএনপির যেসব নেতা নানা কারণ দেখিয়ে বাধা দিচ্ছেন তাদের মনোভাব ইতিবাচক করার চেষ্টা করে ব্যর্থ হয়েছেন তার স্বজনরা। মূলত খালেদা জিয়াকে লন্ডনে নিয়ে চিকিৎসার বিষয়ে সন্দেহের চোখে দেখছেন ওই সব নেতা। আর এ কারণে বিএনপির খবরদারি করা নেতাদের প্রতি খালেদা জিয়ার স্বজনরাও ক্ষুব্ধ হয়েছেন। এ নিয়ে বিএনপির কোনো কোনো নেতার সঙ্গে খালেদা জিয়ার স্বজনদের কথা কাটাকাটি হয়েছে বলেও জানা গেছে।

– দৈনিক ঠাকুরগাঁও নিউজ ডেস্ক –