• শনিবার   ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২১ ||

  • ফাল্গুন ১৪ ১৪২৭

  • || ১৫ রজব ১৪৪২

সর্বশেষ:
করোনা মোকাবিলায় বাংলাদেশের প্রশংসা করলেন জাতিসংঘ মহাসচিব বাংলাদেশ থেকে ইন্টারনেট ব্যান্ডউইডথ নিতে আগ্রহী ভুটান বিশ্বের সেরা তিন রাষ্ট্রপ্রধানের একজন শেখ হাসিনা: ওবায়দুল কাদের কর্মসংস্থান সৃষ্টিই বর্তমান সরকারের লক্ষ্য: প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশ ১০ কোটি ভ্যাকসিন নিশ্চিত করেছে

মিনিকেট নামে কোনো চাল নেই: খাদ্যমন্ত্রী

– দৈনিক ঠাকুরগাঁও নিউজ ডেস্ক –

প্রকাশিত: ১৭ ফেব্রুয়ারি ২০২১  

মিনিকেট নামে কোনো ধান নেই, এটা ব্র্যান্ডের নাম। মিলাররা বিভিন্ন জাতের ধান ছাঁটাই করে এসব ব্র্যান্ডের চাল বাজারজাত করছে বলে অভিযোগ করেছেন খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার।

বুধবার (১৭ ফেব্রুয়ারি) সকালে রাজধানীর ইস্কাটনে চতুর্থ নিরাপদ খাদ্য দিবস-২০২১ উদযাপন উপলক্ষে এক সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন তিনি।

খাদ্যমন্ত্রী মনে করেন, ‘চকচক করলেই সোনা হয় না, এটা বোধ হয় আমরা ভুলে গেছি। চকচক চাল খেতেই আমরা পছন্দ করি। আর ব্যবসায়ীরা এই সুযোগ নিয়ে কারসাজির আশ্রয় নেয়। তারা বিভিন্ন জাতের চাল কেটে-ছেঁটে এসব চাল প্রস্তুত করে। চাল যত বেশি পলিশ করা হয় দামও তত বেশি হয়, সেটা প্যাকেটজাত করলে দাম আরো বেশি হয়। চকচকে চাল খাওয়া বন্ধ করতে হবে। মিনিকেট নামে কোনো ধান নেই, এটা ব্র্যান্ডের নাম। মিলাররা বিভিন্ন জাতের ধান ছাঁটাই করে এসব ব্র্যান্ডের চাল বাজারজাত করছে। নিরাপদ চাল খেতে চাইলে লাল চাল খেতে হবে।’

খাদ্যমন্ত্রী আরো বলেন, মিনিকেট চালের বিষয়ে সার্ভে করতে আমাদের একটি কমিটি করে দেওয়া হয়েছিলো, সেই রিপোর্টটি আমরা হাতে পেয়েছি। মিনিকেট আসলে একটি ব্র্যান্ডের নাম। পলিশ, ফাইন পলিশ, মিডিয়াম পলিশের মাধ্যমে মিলাররা এই ব্র্যান্ডের চাল তৈরি করে বাজারজাত করে।

খাদ্যমন্ত্রীর মতে, এটি চাইলেই বন্ধ করা সম্ভব নয়। মিলাররা কৃষকদের কাছ থেকে একই জাতের ধান পায় না। কৃষকরা একই বস্তায় বিভিন্ন জাতের ধান পুরে মিলারদের সরবরাহ করেন।

– দৈনিক ঠাকুরগাঁও নিউজ ডেস্ক –