• সোমবার   ২৭ জুন ২০২২ ||

  • আষাঢ় ১২ ১৪২৯

  • || ২৫ জ্বিলকদ ১৪৪৩

সর্বশেষ:
যান চলাচলের জন্য খুলে দেয়া হলো পদ্মা সেতুর প্রবেশদ্বার বাংলাদেশ গুরুত্বপূর্ণ দেশ: জো বাইডেন বন্যার্তদের সাহায্যের কথা বলে ফান্ড ভারি করছে বিএনপি পদ্মা সেতু উদ্বোধনের সঙ্গে সঙ্গে খুলে গেল আয়ের খাতা পদ্মা সেতু নিয়ে ষড়যন্ত্র : জড়িতদের খুঁজতে রুল শুনবেন হাইকোর্ট

বিদ্যালয়ের খেলার মাঠে প্রধান শিক্ষকের বাড়ি নির্মাণ

– দৈনিক ঠাকুরগাঁও নিউজ ডেস্ক –

প্রকাশিত: ৩১ মে ২০২২  

দিনাজপুরের বিরামপুরে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের খেলার মাঠ দখল করে বাড়ি নির্মাণের অভিযোগ উঠেছে ঐ স্কুলের প্রধান শিক্ষক মাহবুবার রহমানের বিরুদ্ধে। এ ঘটনায় ইউএনওসহ সংশ্লিষ্ট দফতরে লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন বিদ্যালয় ব্যবস্থাপনা কমিটির সভাপতি। পরে বাড়ির নির্মাণ কাজ বন্ধ করে দেন ইউএনও।

লিখিত অভিযোগে বলা হয়, বিরামপুর উপজেলার দিওড় ইউনিয়নের শৈলাহার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মাঠে বাড়ি নির্মাণ করছেন প্রধান শিক্ষক। এতে শিক্ষার্থীদের খেলার পরিবেশ নষ্ট হওয়ার পাশাপাশি বিদ্যালয়ে যাতায়াতের কোনো রাস্তা থাকবে না।
 
লিখিত অভিযোগে দ্রুত বাড়ি নির্মাণ কাজ বন্ধ করে শিশুদের খেলার পরিবেশ ফিরিয়ে আনার দাবি জানান শৈলাহার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ব্যবস্থাপনা কমিটির সভাপতি।

সরেজমিনে দেখা যায়, বিদ্যালয়টি সীমানাপ্রাচীর দিয়ে ঘেরা। প্রাচীরের পশ্চিম দিকে বিদ্যালয়ের নতুন ভবন নির্মাণ করা হয়েছে। মাঝখানে শিশুদের জন্য রয়েছে খেলার মাঠ। মাঠের মাঝের অংশে সিসি ঢালাই দিয়ে বাড়ি নির্মাণ শুরু করেন প্রধান শিক্ষক মাহাবুবার রহমান। তবে এখন কাজ বন্ধ রয়েছে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, বিরামপুর উপজেলার দিওড় ইউনিয়নের শৈলাহার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার প্রথমের দিকে বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ছিল। বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের নিবন্ধন শর্ত অনুযায়ী প্রধান শিক্ষক মাহবুবার রহমান ১৯৯৩ সালের নভেম্বর মাসে ২৯ শতাংশ জমি প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতরের মহাপরিচালক বরাবর দানপত্র দলিলের মাধ্যমে রেজিস্ট্রি করে দেন। এর পরের বছর ১৯৯৪ সালে একই দাগে আরো ৩৩ শতাংশ জমি রেজিস্ট্রি করে দেন প্রধান শিক্ষক।

২০১৩ সালে বিদ্যালয়টি জাতীয়করণ হয়। সম্প্রতি ঐ ৬২ শতাংশ জমির মধ্যে ৩৩ শতাংশ জমি বিদ্যালয়ের দেখিয়ে ২৯ শতাংশ নিজের বলে দখলে নিয়ে বাড়ি নির্মাণ কাজ শুরু করেন প্রধান শিক্ষক।

জানতে চাইলে শৈলাহার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ব্যবস্থাপনা কমিটির সভাপতি ইমরুল কায়েস বলেন, খেলার মাঠ দখল করে প্রধান শিক্ষক মাহবুবার রহমানের বাড়ি নির্মাণ সংক্রান্ত একটি অভিযোগ বিরামপুরের ইউএনও এবং উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার বরাবর দিয়েছি। ইউএনওর শুনানিতে অংশ না নিয়ে প্রধান শিক্ষক জোরপূর্বক বিদ্যালয়ের খেলার মাঠ দখল করে বাড়ি নির্মাণ করছেন।

এদিকে নিজের বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগ মিথ্যা এবং ভিত্তিহীন দাবি করেছেন ঐ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মাহবুবার রহমান।

উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মিনারা পারভীন বলেন, লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। বিষয়টি নিয়ে তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। এরই মধ্যে ইউএনওর নির্দেশে বিদ্যালয়ের মাঠে বাড়ি নির্মাণ কাজ বন্ধ করা হয়েছে।

বিরামপুরের ইউএনও পরিমল কুমার সরকার বলেন, সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের খেলার মাঠে বিল্ডিং নির্মাণ চলছে- এমন সংবাদ পেয়ে কাজ বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। বিষয়টি তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

– দৈনিক ঠাকুরগাঁও নিউজ ডেস্ক –