• মঙ্গলবার   ১৭ মে ২০২২ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ২ ১৪২৯

  • || ১৩ শাওয়াল ১৪৪৩

সর্বশেষ:
আমাদের সজাগ থাকতে হবে: প্রধানমন্ত্রী সহকারী শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষার প্রবেশপত্র সংগ্রহের আহ্বান দিনাজপুরে ট্রাকচাপায় মোটরসাইকেলের ৩ আরোহী নিহত বাংলাদেশ থেকে কৃষি শ্রমিক নিতে জর্ডানের প্রতি আহ্বান মন্ত্রীর ‘আমাদের কৃষকদের উৎপাদিত ধান দিয়েই চালের চাহিদা মিটছে’

ঠাকুরগাঁওয়ের শপিংমলে এবার রাতেও ক্রেতাদের ভিড়

– দৈনিক ঠাকুরগাঁও নিউজ ডেস্ক –

প্রকাশিত: ২৬ এপ্রিল ২০২২  

করোনার কারণে গত দুই বছর মার্কেট ও শপিংমল গুলো ঠিকমতো খোলা না থাকায় এবার আসন্ন ঈদুল ফিতর উপলক্ষে জমে উঠেছে ঠাকুরগাঁও জেলার বিভিন্ন মার্কেট ও শপিংমল। প্রিয়জন ও পরিবারের সদস্যদের জন্য কেনাকাটা করতে ক্রেতারা রাতেও ভিড় করছেন এসব মার্কেট ও শপিংমলে। সম্পূর্ণ ও স্বাভাবিকভাবে এবার মার্কেট খোলা থাকায় ও ক্রেতাদের সমাগমে প্রাণ পেয়েছে জেলার ব্যবসায়ীরা।

সন্ধ্যায় উত্তরবঙ্গের বৃহৎ ও ঐতিহ্যবাহী কাপড়ের বাজার জেলার রাণীশংকৈলের নেকমরদ ও রাত সাড়ে ১১ টায় ঠাকুরগাঁও শহরের নর্থ সার্কুলার রোডের শপিংমল গুলোতে ঘুরে এমন দৃশ্য দেখা যায়।

নেকমরদ বাজারের নবাব ক্লথ স্টোরের কাপড়ের ব্যবসায়ী জিয়াউর রহমান জিয়া বলেন, ‘গতবছর করোনার কারণে দোকান ঠিক মতো খুলতেই পারিনি। তাই বিক্রয়ও তেমন হয়নি। তবে এবার মার্কেট খোলা থাকায় ক্রেতাদের সমাগম বেড়েছে। অন্যান্য জিনিসের দাম বৃদ্ধি হওয়ায় এবার কাপড়েরও কিছুটা দাম বেড়েছে। গতবার যে শাড়ি আমরা বিক্রয় করেছিলাম সাড়ে ৯শ টাকা। সেই শাড়ি এবার আমাদেরকেই কিনে আনতে হয়েছে সাড়ে ৯শ টাকায়। দাম বৃদ্ধির ফলে ক্রেতাদের বোঝাতে একটু কষ্ট হয়।

অন্যদিকে ঠাকুরগাঁও শহরের নর্থ সার্কুলার রোডের সততা বস্ত্রালয়ে মাদ্রাসার ছাত্রদের জন্য কাপড় কিনতে আসেন গোয়ালপাড়া দারুস সালাম কওমি মাদ্রাসার সাধারণ শিক্ষক মাওলানা মো. ইমদাদুল হক। এ সময় তিনি বলেন, ‘আগে করোনায় দীর্ঘ সময় মার্কেট খোলা ছিল না। তবে এবার মার্কেট খোলা থাকায় আমরা আমাদের সময় সুযোগ মতো সুষ্ঠ ও সুন্দরভাবে কাপড় ক্রয় করতে পেরে খুব ভালো লাগছে। নতুন পোশাক পেয়ে ছাত্ররাও খুশি হবে।

রাতে পরিবার ও সন্তানের জন্য মার্কেট করতে এসে সাবিনা আক্তার নামে এক গৃহবধূ জানান, ‘ব্যস্ততার কারণে দিনে মার্কেট এ আসার সুযোগ হয়নি। এখন এসে সন্তানের জন্য পোশাক ক্রয় করেছি। এখনো কেনা শেষ হয়নি পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের জন্য কাপড় নিবো তাই মার্কেট ঘুরে দেখতেছি।

বেবি হাউজের স্বত্বাধিকারী মাহবুব সরকার বলেন, ‘গত দুই বছর করোনার জন্য ঠিকমতো ব্যবসা করতে পারিনি। এবার কাপড়ের দাম একটু বেশি হলেও মার্কেটে লোকের সমাগম অনেক বেশি এতে বিক্রয়ও হচ্ছে ভালো। এখন শারাড়া ও গারাড়া টাইপের পোশাকের চাহিদা বেশি।

এছাড়াও ব্যবসায়ীরা জানান, সকাল ১০ টা থেকে শুরু করে বিকাল ৫টা ও সন্ধ্যা সাড়ে ৭টা থেকে রাত সাড়ে ১১টা পর্যন্ত মার্কেটে ক্রেতাদের ভিড় থাকে। তারা আশাবাদী যে, কয়েকদিনে মার্কেটে এর থেকেও আর বেশি মানুষের সমাগম ও ভিড় হবে।  

ঠাকুরগাঁও পুলিশ সুপার জাহাঙ্গীর হোসেন বলেন, ঈদ মার্কেটে সাধারণ মানুষদের নিরাপত্তার জন্য আইনশৃঙ্খলা সাদা পোষাকে কাজ করছে। জেলায় ঈদকে সামনে রেখে যেন কোন বিশৃঙ্খলা না ঘটে সেজন্য পুলিশ তৎপর রয়েছে।

– দৈনিক ঠাকুরগাঁও নিউজ ডেস্ক –